পুরাণ প্রায় ১৫০০ বছর আগে রচিত। এই পুরাণে কলিযু‌গ কেমন হবে সে সম্পর্কে বেশ কিছু কথা বলা হয়েছে। হিন্দু শাস্ত্রমতে এখন কলিযুগই চলছে।

image

প্রাচীন হিন্দু শাস্ত্রের যে ১০টি ভবিষ্যতবাণী

ভাগবৎ পুরাণ হিন্দুধর্মের অষ্টাদশ পুরাণের একটি। এই পুরাণে কলিযু‌গ কেমন হবে সে সম্পর্কে বেশ কিছু কথা বলা হয়েছে। হিন্দু শাস্ত্রমতে এখন কলিযুগই চলছে। বর্তমান সময়ের দিকে তাকালে কলিযুগ সম্পর্কে ভাগবতের এইসব ভবিষ্যৎবাণীর অনেকগুলিই সত্য বলে মনে হবে। সেরকমই কয়েকটি ভবিষ্যতবাণীর কথা রইল এখানে—

১. ধর্ম, সত্যবাদিতা, সহিষ্ণুতা, দয়া— এই সবই কলিযুগে মানুষের হৃদয় থেকে লোপ পাবে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.১.)

২. কলিযুগে অর্থই মানুষের সামাজিক সম্মানের একমাত্র নির্ণায়ক হয়ে দাঁড়াবে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.২.)

৩. যৌনক্ষমতার ভিত্তিতেই নারীর নারীত্ব এবং পুরুষের পুরুষত্ব নির্ধারিত হবে কলিযু‌গে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৩.)

৪. কি‌ছু বাহ্যিক আচারবিচারের ওপরেই মানুষের আধ্যাত্মিক অবস্থান নির্ভর করবে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৪.)

৫. দরিদ্র মানুষকে অপবিত্র মনে করা হবে, এবং শঠতা গুণ বলে বিবেচিত হবে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৫.)

৬. ধর্মচর্চার একমাত্র লক্ষ্য হয়ে দাঁড়াবে সামাজিক সুনাম অর্জন।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৬.)

৭. দুর্নীতিপরায়ণ মানুষদের মধ্যে যে সবচেয়ে নিকৃষ্ট সে-ই অর্জন করবে রাজনৈতিক ক্ষমতা।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৭.)

৮. খরার পীড়নে মানুষ সর্বস্বান্ত হবে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৮.)

৯. অতিরিক্ত গরম বা অতিরিক্ত ঠাণ্ডা এবং রোগ, ব্যাধি ও মানসিক অশান্তির তাড়নায় মানুষের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠবে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৯.)

১০. অসচ্চিরত্র মানুষ ধার্মিকের ভেক ধরে অর্থ উপার্জন করবে কলিযুগে।
(শ্রীমদভাগবৎ, ১২.২.৩৮.)

Advertisements